ফ্রিল্যান্সিং

ফ্রিল্যান্সিং

প্রচলিত চাকরির ব্যতিক্রম কিছু অনেকেই প্রত্যাশা করেন। অনেকেই চান মুক্তভাবে নিজের জীবনটা উপভোগ করতে; কাজ করতে। হ্যাঁ, মুক্তভাবে কাজ করার ব্যতিক্রম এই পেশাটির নাম হল ফ্রিল্যান্সিং (Freelancing)। ফ্রিল্যান্সিং কে বলা হয় মুক্তপেশা। আর যারা ফ্রিল্যান্সিং করেন তাদের বলা হয় ফ্রিল্যান্সার (Freelancer); মানে মুক্তপেশাজীবী। কোন কর্মী যদি নির্দিষ্ট কোন ব্যক্তি কিংবা প্রতিষ্ঠানের কাছে স্থায়ীভাবে চাকরি না করে মুক্তভাবে বিভিন্ন ব্যক্তি কিংবা প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তিভিত্তিক কাজ করেন তখন তাকে ফ্রিল্যান্সিং (Freelancing) বলে। সম্প্রতি অনলাইনে Freelancing এর ক্ষেত্রটা বেশ সম্প্রসারিত হয়েছে। দেশের বহু তরুণ ও পেশাজীবীরা এবং উদ্যোক্তারা ক্রমশঃ Freelancing এর দিকে ঝুঁকছে। দিন দিন কেবল এর জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। আর এই ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার গঠনে সহায়তা করতে কোর্সটি সাজানো হয়েছে।

 

এখানে ক্লিক করে কোর্সে বিনা মূল্যে রেজিস্ট্রেশন করে নিন।

কাদের জন্য কোর্স?

যেকোন কেউ কোর্সটি করতে পারেন। বিশেষ করে শিক্ষার্থীরা যেবিষয়ে লেখাপড়া করছেন সে বিষয়ে ফ্রিল্যান্সিং করে নিজেদের পড়ালেখার জ্ঞানকে সমৃদ্ধ করার পাশাপাশি আয়ও করতে পারবেন। আর মহিলাদের জন্য ফ্রিল্যান্সিংটা একটা চমৎকার পেশা হতে পারে। বেকারতরুণরাও ফ্রিল্যান্সিংএ ক্যারিয়ার গঠন করে সাবলম্বী হওয়ার লক্ষ্য নিয়ে কোর্সটি করতে পারেন। এছাড়া চাকরিজীবীরাও অফিস সময়ের পর ফ্রিল্যান্সিং করে আয়ের উদ্দেশ্যে কোর্সটি করতে পারেন।

কোর্সে কয়টি লেকচার থাকবে?

কোর্সটিতে সর্বমোট ১০টি লেকচার থাকবে।

লেকচারগুলোর বর্ণনা/কোর্সের সিলেবাস

১. ফ্রিল্যান্সিং পরিচিতি

২. অনলাইন মার্কেটপ্লেস পরিচিতি

৩. অনলাইনে কাজের সাগর

৪. কোন মার্কেটপ্লেসে কাজ করবেন?

৫. ওডেস্ক প্রোফাইল সাজানো

৬. কাজের নমুনা দেয়ার নিয়ম

৭. দক্ষতার পরীক্ষা দেয়া

৮. অনলাইনে কাজ পাওয়ার কৌশল

৯. মাস্টারর্কাড পাওয়া ও ডলার উত্তোলনের নিয়ম

১০. ফ্রিল্যান্সিং এর সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ।

কোর্স কবে থেকে শুরু হবে? কয় সপ্তাহ চলবে?

২০১৫ সালের ফেব্রুয়ারি ১৫ থেকে কোর্সটি শুরু হতে পারে। সপ্তাহে/ পাক্ষিক একটি করে কোর্স দেয়া হবে। ১০টি ক্লাসের মাধ্যমে কোর্সটি সম্পন্ন হবে।

কোর্স শিক্ষকের সংক্ষিপ্ত পরিচিতি:

মোয়াজ্জেম হোসাইন সাকিল একজন ফ্রিল্যান্সার। ফ্রিল্যান্সিংএ সাফল্যের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি ২০১৩ সালে জেলা ক্যাটাগরিতে কক্সবাজারের সেরা ফ্রিল্যান্সার হিসেবে বেসিস আউটসোর্সিং এওয়ার্ড লাভ করেন। ২০১৪ সালে কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে বাংলাদেশসরকারের তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় আয়োজিত মোবাইল এপস ডেভেলপমেন্ট প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অধিকার করেন এবং পুরুস্কার লাভ করেন।

পেশায় একজন সাংবাদিক। বর্তমানে দেশের প্রথম স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল এটিএন বাংলায় কক্সবাজার প্রতিনিধি হিসেবে কর্মরত আছেন। এর আগে তিনি বাংলাদেশের শীর্ষ ইংরেজি পত্রিকা ডেইলী স্টারের কক্সবাজার প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করেছেন। ডেইলী স্টার পত্রিকায় পরিবেশ বিষয়ক গুরুত্ব লেখালেখির জন্য ২০০৬ সালে কক্সবাজার প্রেসক্লাব তাকে পরিবেশ পুরুষ্কার প্রদান করেন।

তিনি কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে কম্পিউটার সায়েন্স ও ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ে পড়াশোনা করছেন। এছাড়া কক্সবাজারের সবচেয়ে বড় আইটি প্রতিষ্ঠান MUAZZEM এর প্রতিষ্ঠাতা এবং সিইও হিসেবে কাজ করছেন।

Comments

comments

Leave a Reply